শুক্রবার, ১২ জুলাই, ২০২৪, ২৮ আষাঢ়, ১৪৩১
Live TV
সর্বশেষ

লাখ টাকা আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রবাসীদের ৬ হাতে বিক্রি, আদম ব্যবসায়ী খাদেমের বাড়ি ঘেরাও

দৈনিক দ্বীনের আলোঃ
২৯ জানুয়ারি, ২০২৪, ১০:৪৮ অপরাহ্ণ | 50
লাখ টাকা আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রবাসীদের ৬ হাতে বিক্রি, আদম ব্যবসায়ী খাদেমের বাড়ি ঘেরাও
২৯ জানুয়ারি, ২০২৪, ১০:৪৮ অপরাহ্ণ | 50

 

এসএম রুবেল, ক্রাইম রিপোর্টার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ:
মোবাইল- ০১৭৫৬৯১১৯৪৬

দেশের শীর্ষ প্রতারক ও লাইসেন্সবিহীন আদম ব্যবসায়ী খাদেমুল ইসলাম ওরফে খাদেম দালালের প্রতারণার শিকার হয়েছেন দেশের বিভিন্ন জেলার ৫৩ প্রবাসী। মাসে লাখ টাকা আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রবাসীদেরকে নিয়ে গিয়ে ৬ হাত বদল করে বিক্রি করেছেন আদম ব্যবসায়ী খাদেম। এমনকি বর্তমানে তাদেরকে কিরগিজিস্তানের কতাগিরি অঞ্চলে এক ঘরে বন্দি করে রেখে মুক্তিপন দাবি করছেন। প্রত্যেকের কাছে ২ লাখ টাকা দাবি করলে অসহায় হয়ে পড়েছেন প্রবাসীর পরিবারের সদস্যরা।

এনিয়ে সোমবার (২৯ জানুয়ারী) দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শহরের জান্নাতপাড়ার বাড়ি ঘেরাও করে ৯ প্রবাসীর পরিবারের সদস্যরা। এসময় ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে বাড়িতে তালা মেরে পালিয়ে যায় খাদেমের পরিবারের সদস্যরা।

জানা যায়, গত তিন মাস আগে তুর্কিস্থানে মাসে এক লাখ টাকা আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সারাদেশ থেকে ৫৩ জন ব্যক্তিকে বিদেশে পাঠান আদম ব্যবসায়ী খাদেম। এর বিনিময়ে খাদেম প্রত্যেকের কাছ থেকে ৭ লাখ টাকা করে নেন। তুর্কিস্থান পাঠানোর কথা বললেও তাদেরকে কিরগিজিস্তানের একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘরবন্দি করে রেখেছেন। এর আগে তাদেরকে আরও ৬ হাত বিক্রি করে সেখানে পাঠানো হয়েছে বলে জানান প্রবাসে থাকা ভুক্তভোগীরা।

ঘরে বন্দি করে রেখে অমানবিক নির্যাতনের পাশাপাশি খাবার না দিয়ে বাসা থেকে প্রত্যেকের কাছে ২ লাখ করে টাকা দাবি করছেন আদম ব্যবসায়ী খাদেম। টাকা দিলে মুক্তি দেয়া হবে বলে শর্ত দিচ্ছেন খাদেম ও তার লোকজন। এদিকে, ৭ লাখ টাকা করে দিয়ে পাঠানোর পর আরও ২ লাখ করে মুক্তিপণ দাবির খবরে আতঙ্কিত পরিবারের সদস্যরা। ঋণ করে ও জমি বিক্রি করে বিদেশ পাঠিয়ে নিঃস্ব হয়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৯ জন প্রবাসী।

অনুসন্ধান ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, মোট ৫৩ জন গেলেও বিভিন্ন জায়গায় দলবদ্ধ করে তাদেরকে আটকে রেখেছে খাদেমের লোকজন। এমনকি এখন ৪ জনের কোনরকম সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে প্রবাসে গিয়ে প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগীরা হলেন- সালমান, হযরত, ইসমাইল, আসাদুজ্জামান, ইব্রাহিম, সিহাব, ওয়াসকুরুনি, মতিন ও রাকিবুল হাসান।

এছাড়াও রাজশাহীর রয়েছে আরও ১৬ জন ভুক্তভোগী। বাগমারা থানার হারিসপুর ইউনিয়নের মান্নান সর্দারের ছেলে জাহাঙ্গীর আলমকে মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে বেধড়ক মারধর ও শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে। বর্তমানে তার অবস্থা খুবই সোচনীয়।

অনুসন্ধান বলছে, আদম ব্যবসায়ী খাদেমের এসব অপকর্মের নেতৃত্ব দেয় তার সুমন আলী। গত ১৯ বছর ধরে মানুষের সাথে এমন প্রতারণা করছে আদম ব্যবসায়ী খাদেম। এসব অপকর্ম করে রাজধানী ঢাকায় আলিশান তিনটি বাড়ির মালিক বনেছেন খাদেম আলী। তার নিজের কোন লাইসেন্স না থাকলেও অন্যের লাইসেন্সের নাম ভাঙ্গিয়ে দেশব্যাপী এসব প্রতারণার জাল পেতেছেন খাদেমুল ইসলাম ওরফে খাদেম দালাল৷

ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, প্রথম দিকে অন্যের লাইসেন্সে কয়েকজন লোক পাঠিয়ে সেই সুনাম কাজে লাগিয়ে এমন প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছে খাদেম। আদম ব্যবসা থেকে অবৈধভাবে টাকা হাতিয়ে জমির ব্যবসায় বিনিয়োগ করছেন তিনি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার ধীনগরে প্রায় ৫০-৬০ বিঘা জমি কিনেছেন তিনি। এসব জমি বিক্রি করে মানুষের টাকা সামান্য করে ফেরত দিচ্ছেন। প্রবাসী ম্যানেজ করে দিতে ২৫০ জন লোকবল রয়েছে খাদেম দালালের৷ চাঁপাইনবাবগঞ্জ-রাজশাহী ছাড়াও কুষ্টিয়া, যশোর, পাবনা থেকে বেশি লোক পাঠিয়েছে।

এসব টাকা থেকে বাড়ি সোনা রাইস মিল নির্মাণ করেছেন খাদেম আলী। ৪ বছর আগে ইতালি পাঠানোর কথা বলে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এমনকি আদম ব্যবসা থেকে করা অবৈধ আয় তিনি সুদের কারবারে বিনিয়োগ করেন। তার সুদের কারবারে নিঃস্ব হয়েছেন হাজারো মানুষ। তাকে আইনের আওতায় এনে দ্রুত বিচারের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য ও সচেতন মহল।

প্রবাসী কল্যান মন্ত্রণালয়ের এক শীর্ষ কর্মকর্তা একেএম ফজলুর রহমান চৌধুরী এবিষয়ে বলেন, খাদেমের মতো আদম ব্যবসায়ীকে আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তার বিরুদ্ধে প্রবাসীদের সাথে প্রতারণা করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে ও মুক্তিপণ আদায়ের ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে।

error: Content is protected !!