রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪, ২ আষাঢ়, ১৪৩১
Live TV
সর্বশেষ

টানা আট দিন পরে আজ সকাল এগারোটা থেকে দেখা মিলেছে সূর্য মামার।

দৈনিক দ্বীনের আলোঃ
১৮ জানুয়ারি, ২০২৪, ৬:৩৯ অপরাহ্ণ | 41
টানা আট দিন পরে আজ সকাল এগারোটা থেকে দেখা মিলেছে সূর্য মামার।
১৮ জানুয়ারি, ২০২৪, ৬:৩৯ অপরাহ্ণ | 41

 

কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী)প্রতিনিধিঃ

টানা আট দিন সকালে কনকনে শীত আর ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা ছিলো নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে সীমান্তবর্তী উপজেলা। আজ সকাল ১১টার দিকে সূর্যের দেখা মিললেও নেই কোন সূর্যের তাপ। ভোরবেলা ও রাতে বৃষ্টির মতো ঝরছে কুয়াশা। ঘন কুয়াশা আর কনকনে শীতে কাঁপছে এ উপজেলার মানুষ। সকাল বেলায় হেডলাইট জ্বালিয়ে চলছে যানবাহন। ঘন কুয়াশা আর হিমেল ঠাণ্ডা বাতাসে বিপর্যস্ত জনজীবন। এ শীতে সবচেয়ে কাবু হয়েছে শিশু বয়স্করা। সেই তীব্র শীত উপেক্ষা করে শিক্ষার্থীরা স্কুল মাদ্রাসায় যাচ্ছে। তাই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমেছে অনেক অংশে।

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) সকাল ৬ টায় জেলার তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

নীলফামারী আবহাওয়া অধিদফতরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আজ সকাল ৬ টায় নীলফামারীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসের আর্দ্রতা ৯৭ শতাংশ। গতকাল একই সময় তাপমাত্রা ছিল ১১.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ৯৪ শতাংশ।

উপজেলার রুপালি কেশবা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা খুশি বেগম গত এক সপ্তাহ যাবৎ এ এলাকায় তীব্র শীত। গতকাল দুপুরের পরে পশ্চিম আকাশে সূর্যের দেখা মিললেও কোন তাপ ছিলো না। সকালে ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা ছিলো এ এলাকা। কিন্তু বেলা বাড়ার সাথে সকাল এগারোটার দিকে আজ সূর্যের দেখা মিলেছে। সূর্যের তাপ না থাকলেও খুব ভালো লাগছে। তীব্র শীতের কারণে বিদ্যালয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমেছে অনেক অংশে।

মোটা জামা কাপড় পরার পাশাপাশি সকালে রাতে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারনের চেষ্টা করছে এই উপজেলায় শীতার্ত মানুষরা। গৃহপালিত পশুকে শীত থেকে রক্ষায় পরিয়ে দেওয়া হচ্ছে চটের বস্তা। শীতে জবুথবু হয়েও কাক ডাকা ভোরে অনেক শ্রমজীবী মানুষেরা ঘর থেকে বের হয়েছেন। সড়কে হেডলাইট জ্বালিয়ে চলছে যানবাহন।

error: Content is protected !!